Abdur Rahman Rahul

Student in 106, Shiroil, Ghoramara, Rajshahi, Bangladesh

Abdur Rahman Rahul

Student in 106, Shiroil, Ghoramara, Rajshahi, Bangladesh

আমি জানি কোন না কোনদিন আমার মত হাজারো সুবিধা বঞ্চিত ছেলেরা নিজ পাঁয়ে দাড়াতে পারবে। সেদিন আর বেশি দূরে নয়। কারণ, ২০১২ সালে বাংলাদেশে ডেমোগ্রাফিক বোনাস-এ প্রবেশ করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ৪০ শতাংশের বয়স ১৮ বছরের নিচে। ২০১২ সালে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৬০ মিলিয়ন বা ১৬ কোটি। এই হিসাবে প্রায় ৭ কোটি জনগন ১৮ বছরের নিচে। (তথ্যসুত্রঃ সিআইএ- দ্যা ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুক)। উন্নত এবং উন্নয়নশীল খুব কম দেশই এই বিশাল কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী পেয়েছে। চীনে বিপুল পরিমান জনগোষ্ঠী থাকলেও ২০১২ সালে দেশটি ডেমোগ্রাফিক বোনাস থেকে বের হয়ে গেছে, অর্থাৎ দেশটিতে এখন নির্ভরশীল জনগনের সংখ্যা বেশি। সেখানে আমাদের বর্তমানে কর্মক্ষম লোকের সংখ্যা বেশি, নির্ভরশীল নয়। এটা বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় ইতিবাচক দিক। কিন্তু সেই ইতিবাচক দিকটির উপযুক্ত ব্যবহার কি আমরা করতে পারছি? না , পারছি না। যার বাস্তব প্রমাণ আমি নিজেই।

যখন ঢাকায় ছিলাম, তখন আউটসোর্সিং করার কিছু বই কিনেছিলাম। আমার চিন্তাধারা ছিল চাকুরি নয় নিজেই নিজের চাকুরিদাতা হব। স্বাধীন থাকবো। তাই পরিক্ষার পরেই আউটসোর্সিং এর বিষয়টি বাড়ির সবাইকে বুঝিয়ে বলি। আবদার শুধু একটা ল্যাপটপের। আমার বুঝানো যথার্থ হওয়ায় আব্বা বুঝতে পেরেছিলেন আমার মনোভাব। তাই অনেক কষ্টে জমানো টাকা দিয়ে আমাকে ল্যাপটপ কিনে দেন। বাংলাদেশে তৈরি দোয়েল ল্যাপটপ। দাম ২৪ হাজার টাকা। টাকা সঙ্কুলান না হওয়ায় কিছু টাকা ধারও করেছিলেন। কিন্তু কপাল মন্দ হলে যা হয়। তিন মাসের মাথায় ল্যাপটপের হার্ডডিক্স ক্র্যাশ করলো। যে দোকান থেকে ল্যাপটপ কিনেছিলাম সেখানে গেলাম, আশা এক বছরের ওয়্যারেন্টি আছে, Replacement পাবো। দোকানদার যা বললো তাতে আমার আশার বাতি নিভে গেল। ওয়্যারেন্টি দেওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। তারা কোনক্রমেই ঢাকাতে Contact করতে পারছে না। তারা চেকিং করে বলল, হার্ডডিক্স সম্পুর্ণ Dead. ড্যাটা রিকভারি করারও কোন অপশন নেই। তিন মাসে যা ড্যাটা কালেক্ট করেছিলাম সব শেষ। নতুন হার্ডডিক্স কিনবো সে টাকাও আমার কাছে নেই। করার কিছুই নাই, তাই ফিরে আসলাম। এদিকে বাড়িতে স্বপ্ন দেখিয়ে রেখেছি অনলাইন থেকে আয় করার। কিন্তু যারা অনলাইনে আয় করে তারা সবাই জানে এত কম সময়ে অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব নয়। কিছুদিন পরে S.S.C পরিক্ষার Result Publish হল। GPA 5 পেলাম। সরকারি পলিটেকনিকে চান্স না হওয়ায় অন্য প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হই ইন্টারমিডিয়েটের জন্য। এর মাঝে এক অনলাইন পত্রিকায় পার্ট টাইম জব পেলাম ওয়েবসাইটে নিউজ পাবলিশ করার জন্য। বেতন ১ হাজার টাকা। অফিসেই থাকতে লাগলাম। তবে আমার উদ্দ্যেশ্য অবসরে ইন্টারনেট ব্যবহার করে নিজের পজিশন তৈরি করা। কিন্তু সে সুযোগ কমই পেলাম। অফিসের সময় টাইপিং এর কারনে ব্যস্ত থাকতাম। সময় শেষ হয়ে গেলে অফিস বন্ধ করে দেওয়া হত। কয়েক মাসের বেতন যুক্ত করে ২৪০০ টাকা দিয়ে একটা ৮০ জিবি হার্ডডিক্স কিনলাম। কিন্তু এই হার্ডডিক্সও ১ মাসের মাথায় ক্র্যাশ করলো। বুঝলাম, ল্যাপটপের কারিগরি ক্রুটি রয়েছে। সবাই আমাকে বলতে লাগলো, কেন আমি

  • Work
    • Tech24 Now
  • Education
    • H.S.C 2nd Year