প ত্র

Student, Writer, and Father in China

Read my blog

এ ভূ-পৃষ্ঠের প্রতিটি ঘরে ঘরে ফেসবুক পৌঁছে যাবে না, কিন্তু এ ভূ-পৃষ্ঠের প্রতিটি ঘরে ঘরে আল্লাহ তায়ালার মনোনীত দ্বীন পৌঁছে যাবে।

ফেসবুকের মাধ্যমে আল্লাহর কিছু বান্দা ইসলাম প্রচার করেন। তারা দ্বীনের দাওয়াত দেন। কুরআন, হাদীসের কথা বলেন।

আর তাই নাস্তিকদের কমন যে প্রশ্ন ফেবু ইসলামিস্টদের ফেস করতে হয় তা হল, …. “তাহলে আপনারা ফেসবুক ব্যবহার করেন কেন? ফেসবুকতো ইহুদীদের তৈরী।”

অথচ তারা বুঝে না যে এটা কাফের ফাসিকদের প্রতি আল্লাহ তায়ালার রহমত ও সতর্কবার্তা যে তাদের পরিচিত ও তাদেরই আবিষ্কৃত মিডিয়াতে আল্লাহ তায়ালা দ্বীনের দাওয়াত ছড়িয়ে দিচ্ছেন যেন কিয়ামতের ময়দানে তারা অস্বীকার না করতে পারে তাদের কাছে দ্বীনের দাওয়াত পৌঁছানো হয় নাই বা তারা এ সম্পর্কে অজ্ঞ ছিল।

এ ভূ-পৃষ্ঠের প্রতিটি ঘরে ফেসবুক কস্মিনকালেও পৌঁছাতে পারবে না। এ দাবি ফেসবুক কর্তৃপক্ষও করে না। কিন্তু আল্লাহ তায়ালার দ্বীন এ ভূ-পৃষ্ঠের প্রতিটি ঘরে পৌঁছে যাবে। এ বিষয়ে ওয়াদা আছে। সারা পৃথিবী থেকে যদি যোগাযোগের সমস্ত মাধ্যম সরিয়ে নেয়া হয় তথাপি আল্লাহর হুকুমের কোন পরিবর্তন হবে না।

মিকদাদ বিন আসওয়াদ (রাঃ) বলেন, তিনি রাসূল (সাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লাম) কে বলতে শুনেছেন যে, ভূপৃষ্ঠে এমন কোন মাটির ঘর বা তাঁবু থাকবে না যেখানে আল্লাহ তায়ালা ইসলামকে পৌঁছে দিবেন না- সম্মানীর ঘরে সম্মানের সাথে এবং অসম্মানীর ঘরে অসম্মানের সাথে। অতঃপর আল্লাহ যাদেরকে সম্মানিত করবেন, তাদেরকে স্বেচ্ছায় ইসলাম গ্রহণের যোগ্য করে দিবেন। আর যাদেরকে তিনি অসম্মানিত করবেন তারা জিযিয়া দিয়ে এ দ্বীনের বশ্যতা স্বীকারে বাধ্য হবে। আমি বললাম, তাহলে তো দ্বীন পূর্ণভাবে আল্লাহর জন্য হয়ে যাবে। [মুসনাদ ইবনে আহমাদ] [মিশকাত শরীফ]

মনে রাখবেন ইসলাম সাড়ে চৌদ্দশত বছর পথ পাড়ি দিয়েছে ফেসবুক দিয়ে নয়। কাফির ও ফাসিকদের প্রয়োজনে ফেসবুকের মাধ্যমে ইসলামের প্রচার করা হয়, ইসলামের প্রয়োজনে কদাচিৎ নয়।